প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে মিলাদ ও দোয়া




প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে মিলাদ ও দোয়া

আলী হোসেন রানা: ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের গৌরবজ্জল দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনের মঙ্গল ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু ও সুস্বাস্থ্য কামনা করে মহান আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করা হয়।

আজ শুক্রবার বাদ আছর রাজধানীর ৪৮নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে আয়োজিত ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের গৌরবজ্জল দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ‘‘দোয়া, মিলাদ ও আলোচনা’’ শীর্ষক মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠানে দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়।

আয়োজিত দোয়া, মিলাদ ও আলোচনা সভায় উত্তর সায়েদাবাদ মুন্সীবাড়ী জামে মসজিদের প্রেস ঈমাম মুফতি মাওলানা কাওছার আহমেদ। এর আগে মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন দক্ষিন সায়েদাবাদ বায়তুল ফালাহ্ জামে মসজিদের প্রেস ঈমাম মাওলানা লোকমান। এছাড়াও ঢাকাবাসির মঙ্গল-সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া, মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে পথ শিশু এবং দরিদ্রদের মাঝে উন্নতমানের খাবার বিতরণ করেন কাউন্সিলর আবুল কালাম অনু। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৪৮নাম্বার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন গেসু। সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল কালাম অনু।
এ সময় দোয়া, মিলাদ ও আলোচনা সভায় আরো উপিস্থত ছিলেন যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের নেতা আনোয়ার হোসেন, এস এম আলী হোসেন রানা, ইসমাইল হোসেন খান, সাঈদ মিলন, এম আর এস মহসীনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

রাজধানীর ৪৮নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে আয়োজিত ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের গৌরবজ্জল দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে ‘‘দোয়া, মিলাদ ও আলোচনা’’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে কাউন্সিলর আবুল কালাম অনু বলেছেন, গত দুই বছরে আমার ৪৮ নাম্বার ওয়ার্ডে মাদক-সন্ত্রাস এবং বজ্রমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলস কাজ করে বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে একটি উন্নত জাতি রাষ্ট্রে পরিণত করার যে স্বপ্ন দেখেছেন-তা আজকে বাস্তবে রুপ পেয়েছ। এখন বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে দরিদ্র রাষ্ট্র হিসেবে নয়-উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে মুল্যায়ন করা হয়। তাই আগামী ২০১৯ সালের নির্বাচন সামনে রেখে আমাদেরকে তৃণমূল পর্যায় থেকে কাজ শুরু করতে হবে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণের দল। জনগণই আওয়ামী লীগের মূল চালিকা শক্তি। তাই এখন থেকেই প্রতিটি ওয়ার্ড,থানা,ইউনিট পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে জনবান্ধব রাজনীতি চর্চার সংস্কৃতি শুরু করতে হবে।