শারমিন এসএসসিতে পেল সাফল্যয




শারমিন এসএসসিতে পেল সাফল্যয

স্টার বাংলা ঝালকাঠি: প্রতিকূলতা পেরিয়ে জীবন যুদ্ধে আবারও বিজয় ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছেন রাজাপুরের সেই শারমিন আকতার। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ‘ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অব কারেজ-২০১৭’ পুরস্কারে ভূষিত ঝালকাঠির শারমিন আকতার এবার এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৪.৩২ পেয়ে পাশ করেছেন। বাল্যবিয়ে ঠেকানো শারমিনের এ সাফল্যে রাজাপুর উপজেলার পাইলট বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, সহপাঠী, আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী গর্বিত।

প্রধান শিক্ষক গাজী গোলাম মোস্তফা জানান, এত ঝড়-ঝাপাটার মধ্যেও জীবন সংগ্রামী মেয়েটির এ ফলাফল প্রশংসনীয়। আমরা (শিক্ষকরা) সব সময়ই শারমিনকে পড়াশুনায় উৎসাহ দিতে চেষ্টা করেছি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ফলাফল জানতে নিজের স্কুলে এলে শারমিনকে নিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়।

শারমিন জানায়, মায়ের বিরুদ্ধে মামলা না করলে তার পরীক্ষাই দেয়া হত না। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে এ ফলাফলেই সে সন্তুষ্ট। তার মতো সব মেয়েরাই যেন সাহসী ও প্রতিবাদী হন।

শারমিন ভবিষ্যতে একজন আইনজীবী হতে চান। যাতে আজীবন নির্যাতিত নারীদের পাশে দাঁড়াতে পারেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের আগস্টে ৩২ বছরের বয়সী এক পাত্রের সাথে ১৫ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী শারমিনের বিয়ে পাকা করেন মা। মায়ের সিদ্ধান্তের এ বাল্য বিয়েতে রাজী না হওয়ায় খুলনায় নিয়ে পাত্রের সাথে এক ঘরে আটকে রাখা হয় শারমিনকে। সেখান থেকে কৌশলে পালিয়েও মুক্তি পায়নি শারমিন। মা এবং সেই যুবকের নির্যাতন সহ্য করতে হয় তাকে। পরে এক সহপাঠীর সহযোগিতায় শারমিন পালিয়ে রাজাপুর থানায় আসে এবং তার মা গোলেনুর বেগম এবং পাত্র মো. স্বপনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এ ঘটনা দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে প্রচারের জানতে পাড়ে বিশ্ববাসী। অসীম সাহসিকতা ও অদম্য ইচ্ছার স্বীকৃতি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ‘ইন্টারন্যাশনাল ইউমেন অব কারেজ-২০১৭’ পুরস্কারে ভূষিত হন শারমিন আকতার।

গত ৩০ মার্চ মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের কাছ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট নেন তিনি।

শারমিন আকতার ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার সত্তনগ গ্রামের কবির হোসেনের মেয়ে। এক ভাই ও বোনের মধ্যে শারমিন বড়।