ফেসবুকে ইলেকট্রিক ডিভাইস দূরে রাখার প্রচারণাটি গুজব




ফেসবুকে ইলেকট্রিক ডিভাইস দূরে রাখার প্রচারণাটি গুজব

স্টার বাংলা ডেস্ক: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ব্যক্তিগত মোবাইলে অনেকেই বার্তা পাচ্ছেন যে, আজ রাত সাড়ে ১২টা থেকে রাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত মোবাইল, ট্যাবসহ ইলেকট্রিক ডিভাইস বন্ধ ও শরীরের কাছ থেকে দূরে রাখতে হবে। তা নাহলে শরীরের অনেক ক্ষতি হবে। এ ধরনের প্রচারণাকে গুজব বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিটিআরসি)। এছাড়া এ ধরনের প্রচারণা মূলত ফেসবুকে লাইক বাড়ানোর জন্য অনেকে পোস্ট দিয়ে থাকেন বলেও জানিয়েছেন আইটি বিশেষজ্ঞরা।
গত দুই-তিনদিন ধরে এ ধরনের প্রচারণা অনেকের ফেসবুক ওয়াল ও মোবাইল বার্তায় ঘুরপাক খাচ্ছে। এর ফলে সাধারণ মানুষের মাঝে এক ধরনের দ্বিধাদ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। সবার মনে একটাই প্রশ্ন এ ঘটনা সত্য নাকি গুজব।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিটিআরসি) সচিব সারোয়ার আলম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা ঘটবে বলে আমাদের জানা নেই। এটা সম্পূর্ণ গুজব। এ ধরনের ঘটনা আমরা প্রথম শুনলাম।’ তবে এ বিষয়ে খোঁজ নেবেন বলেও জানান বিটিআরসি’র এই কর্মকর্তা।
এদিকে কে এম নেয়ামুল বাশার নামে একজনের ফেসবুক পেইজে এই পোস্ট শেয়ার করতে দেখা গেছে। সেখানে অনেকে কমেন্ট করেছেন যে, আসলে ঘটনা কি? কেউ কেউ আবার জানতে চেয়েছেন, ঘটনা সত্য না মিথ্যা?
এক ধরনের প্রতারক চক্র এমন গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করতে পারে বলেও মনে করছেন আইটি বিশেষজ্ঞরা।
তাদের মতে, কেউ যদি এ ধরনের প্রচারণা শুনে মোবাইল বন্ধ রাখে এবং সেই মুহূর্তে ওই ব্যক্তির পরিবারের অন্য সদস্যদের ফোন করে বলা হয় যে তিনি বিপদে পড়েছেন। তখন পরিবারের সদস্যরা মোবাইল বন্ধ থাকার কারণে ওই ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে না। ফলে প্রতারণার শিকার হতে পারে।
এ প্রসঙ্গে আইটি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার বলেন, শুধুমাত্র একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এমন সমস্যা হবে বলে কোনো কারণ আমি দেখছি না। এ ধরনের প্রচারণা বিশ্বাস করার কোনো নেই। নির্দিষ্ট একটা সময়ের জন্য সমস্যা বিজ্ঞানসম্মত নয়।
আরেক আইটি বিশেষজ্ঞ মিনহার মাহমুদ এ প্রসঙ্গে বলেন, এ ধরনের প্রচারণা ফেসবুকে যারা দেন, মূলত লাইক বাড়ানোর জন্য। আর মোবাইলে ম্যাসেজ করে খুব কম লোককে জানান। কারণ ম্যাসেজ করতে টাকা দরকার হয়।
মানুষকে হয়রানি করার জন্য কেউ এমন প্রচারণা চালাতে পারে বলে মনে করছেন তিনি।
তিনি বলেন, ‘অন্য একটা দেশের টেলিভিশনে যদি এমন কিছু প্রচার হতো, তাহলে তা বিশ্ব মিডিয়ায় অবশ্যই আসতো। কিন্তু তা না এসে এককেন্দ্রিক ফেসবুকে ছড়াচ্ছে। এর কোনো ভিত্তি নেই।’ তাই এসবে কান না দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন এই আইটি বিশেষজ্ঞ।