পুলিশের বিরুদ্ধে সামারি বাণিজ্যের অভিযোগ




পুলিশের বিরুদ্ধে সামারি বাণিজ্যের অভিযোগ

স্টার বাংলা নিউজ: রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর থানার ওসি মো. আনিছুর রহমান-এসআই আশীষ কুমার  দেব এবং এসআই নয়নের নানা ধরনের অপকর্ম তুলে ধরে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন ভোক্তভোগি একটি পরিবার। পরিবারটির অভিযোগ, ওই পুলিশ কর্মকর্তারা তার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, হয়রানী এবং টাকা না দিলে হত্যার করে লাশ গুম করার মতন ভয়ভীতি  দেখানোর অভিযোগ করেন।

আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পান্না আকতার বুবলি।

লিখিত বক্তব্যে পান্না আকতার বুবলি বলেন, এসআই নয়নের পরিকল্পনায় দিনের পর দিন আমার স্বামী আমিনুল ইসলাম লিটনকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছে। কোনও প্রকার মামলা বা অভিযোগ না থাকার পরও জোর করে বাসার দরজা ভেঙ্গে আমার স্বামীকে টেনেহিছরে থানায় নিয়ে মারধর করে। থানায় গিয়ে আমরা জিজ্ঞেস করলে কোনও কথা না বলে ১০ লাখ টাকা দাবি করে। আর এই টাকা না দিলে খুন করে আমার স্বামীর লাশ ঘুম করার কথাও বলে। জীবন বাঁচানোর তাগিদে আমরা নিরুপায় হয়ে ১ লাখ ২০ হাজার টাকার দিয়ে আমার স্বামীকে ছাড়িয়ে আনতে সক্ষম হই।
বুবলি আরো বলেন, আমরা অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শাহ ইফতেখার আহমেদের কাছে থাত্রাবাড়ী থানার পুলিশের এই ধরনের কর্মকান্ড নিয়ে আলোচনা করলে এক পর্যায়ে যাত্রবাড়ীর ৪৮নং ওয়ার্ড কমিশনার জনাব আবুল কালাম অনুর মাধ্যমে আমার শ্বাশুরিকে ফোনের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে ৫০ হাজার টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। আমার শ্বাশুরি তখন টাকা না নিয়েই চলে আসে। পরে আমার স্বামী আমিনুল ইসলাম লিটনের বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি ও খুন করে লাশ গুম করার জন্য হুমকি-ধামকি দিতে থাকে।
লিটনের স্ত্রী দাবি করেন, তাদের বাড়ীর অবৈধ ভাড়াটিয়া কথিত পুলিশ সোর্সের বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী থানায় জিডি করে ফেরার সময় থানায় গেইট থেকে নিয়ে এসআই আশীষ কুমার দেব আমার স্বামীকে পুনরায় নাটকীয় কায়দায় আটক করে আমাদের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে পরে ছেড়েও দেয়।
সাংবাদিক সম্মেলনে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দেশের একটা নাগরিককে পুলিশ কেন গ্রেফতার করছে, কেন টেনেহিছরে থানায় নিয়ে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করছে, সে প্রশ্ন করলে উত্তর আসে, ১০ লাখ টাকা নিয়ে আয়। বেশি বাড়াবাড়ি করবি তো খুন করে লাশ গুম করা হবে। তোর বিরুদ্ধেও এমন মামলা দেওয়া হবে ১৪ বছরেও বাইরের আলো-বাতাস দেখবি না।
হয়রানি ও মিথ্যা মামলার মুল পকিল্পনাকারী এসআই নয়নকে উল্লেখ করে বুবলি তাঁর পরিবারের উপর অমানসিক-শারীরিক নির্যাতনকারী ব্যক্তি ও মহলকে দ্রুত চিহ্নিত করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশে উর্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানান।