ইসিতে রদবদল নীলনকশার অংশ: বিএনপি




ইসিতে রদবদল নীলনকশার অংশ: বিএনপি

স্টার বাংলা নিউজ: নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মাঠ প্রশাসনের ব্যাপক পরিবর্তন একটি সুদুরপ্রসারী নীলনকশার অংশ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের নিয়োগ-পদোন্নতি কমিটির যিনি প্রধান, তিনি এই গণবদলি ও পদোন্নতির ঘটনার বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে আজকে একটি দৈনিক পত্রিকার খবরে প্রকাশিত হয়েছে। ইসির নিয়োগ, পদোন্নতি, প্রশাসনিক সংস্কার ও পুনর্বিন্যাস এবং দক্ষতা উন্নয়ন কমিটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার এ বিষয়ে ইসি সচিবকে নোট দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা দেশবাসীর মধ্যে বিস্ময় সৃষ্টি করেছে। এতে স্বয়ং ইসির অনেক কর্মকর্তাও ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এই ঘটনায় কমিশনের শুধু ভাবমূর্তিই নষ্ট হয়নি, বরং এতে নির্বাচন কমিশনের কর্মকাণ্ড বিশাল প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে।’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, ‘আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং ডিসেম্বর থেকে সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার প্রাক্কালে অশুভ উদ্দেশে এই পরিকল্পিত গণবদলি ও পদোন্নতির ঘটনা ঘটানো হয়েছে কিনা সেটি নিয়ে সবার মনে বড় ধরনের প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে মাঠ প্রশাসনের এই ব্যাপক পরিবর্তন একটি সুদুরপ্রসারী নীলনকশারই অংশ।’

তিনি আরো বলেন, ‘আগামী নির্বাচনগুলোকে প্রভাবিত করার জন্যই এটা একটা চক্রান্তের জাল বিস্তারের আলামত কিনা সেটাই দেশের ভোটারদেরকে এখন ভাবিয়ে তুলেছে।’

তেল, গ্যাস, খনিজসম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির মঙ্গলবারের রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বিরোধী সমাবেশে হামলার নিন্দা জানিয়ে রিজভী বলেন, ‘সুন্দরবনের সুরক্ষাকে বিপন্ন করছে সরকারের একগুঁয়েমি নীতি।’

তিনি বলেন, ‘সরকার এখন মরিয়া হয়ে প্রতিবাদকারীদের ওপর চালাচ্ছে নিষ্ঠুর নিপীড়ন। দেশ ও পরিবেশ বাঁচানোর লড়াইয়ে অংশগ্রহণকারীদের ওপর হামলা চালিয়ে রক্ত ঝরাচ্ছে।’

অর্থপাচার নিয়ে সংসদে অর্থমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী বলেছেন- সুইস ব্যাংকে অর্থ পাচার হয়নি, লেনদেন হয়েছে। আবার তিনি এও বলেছেন যে, তবে সামান্য কিছু অর্থ পাচার হয়েছে।’

‘মাত্র কয়েকদিন আগে সিলেটের এক সভায় অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, সুইস ব্যাংকসহ বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচারে আমরাও দায়ী। এধরনের স্ববিরোধী বক্তব্য আওয়ামী নেতাদের চিরাচরিত টেকনিক’ যোগ করেন তিনি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব আরো বলেন, ‘আসলে ক্ষমতাসীনদের উচ্চপর্যায়ের অনেক নেতাই এই লাখ লাখ কোটি টাকা পাচারে জড়িত বলে তাদের চাপেই অর্থমন্ত্রীকে আগের কথা থেকে সরে আসতে বাধ্য করা হয়েছে। তাকে আবারো বলির পাঠা করা হয়েছে।’